ছাত্র ছাত্রীদের ফেইসবুক ব্যবহার করার ৫টি গুরুত্বপূর্ণ কারণ

0
7

প্রিয় শিক্ষার্থীরা, করোনভাইরাস সংক্রমণের এই লকডাউন পরিস্থিতিতে কীভাবে কেমন চলছে তোমাদের পড়াশুনা। আশা করি, আল্লাহ যেন আমাদের সারা বিশ্বের মানুষকে এই মহামারী থেকে বাঁচান। আজ আমি ছাত্র-ছাত্রীদের ফেইসবুক ব্যবহার করার ৫ টি গুরুত্বপূর্ণ কারণ নিয়ে আলোচনা করব।

ফেসবুক এই মুহূর্তে বিশ্বের বৃহত্তম যোগাযোগ এবং সামাজিক মাধ্যম। আপনি এটিকে আপনার পড়াশুনায় সহায়ক হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।

আসুন জেনে নিই কেন এখনই একজন ছাত্র-ছাত্রী হিসেবে আপনার ফেসবুক ব্যবহার শুরু করা উচিত।

১. শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ

২০০৪ সালে ফেসবুকের প্রতিষ্ঠার মূল কারণ ছিল অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করা। ফেসবুক এখন বিশ্বব্যাপী যোগাযোগের একটি সাধারণ হাতিয়ার হয়ে উঠেছে। এটি ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্ববাসীর মধ্যে একটি বিশাল ভার্চুয়াল কমিউনিটি তৈরি করেছে।

ফেইসবুকের মাধ্যমে, আমরা সহজেই মেসেজ পাঠাতে পারি, কল করতে পারি বা আমাদের বন্ধুবান্ধব কারও সাথে কিছু শেয়ার করতে পারি। একজন ছাত্র হিসাবে আপনার নিজের দেশের পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী অন্যান্য শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করার অনেক প্রয়োজন রয়েছে।

আপনার উত্তরগুলি সন্ধান করুন

ফেসবুক যে কোনও প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পাওয়া সহজ করে দিয়েছে। কখনও কখনও আপনার কাছে পড়াশোনার যে কোনও ক্ষেত্রে প্রশ্ন থাকতে পারে যার উত্তর আপনি খুঁজে পাচ্ছেন না। আপনার নিউজ ফিডে বা যে কোনও শিক্ষার্থীদের গ্রুপে প্রশ্নটি পোষ্ট করুন। আপনার উত্তর পেতে খুব বেশি সময় প্রয়োজন হবেনা।

বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলুন

আপনি যখন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের সাথে সংযুক্ত থাকেন, আপনি সবসময় সর্বশেষ সংবাদ, তথ্য, সর্বশেষ উদ্ভাবিত তথ্য প্রযুক্তি এবং আপনার পড়াশুনার বিষয় সম্পর্কিত তথ্য পেয়ে থাকবেন।

আপনি ফেইসবুকের নিউজ স্টোরিগুলি অনুসরণ করতে, নিউজ চ্যানেল বা অন্যান্য ব্যবহারকারীদের শেয়ার করা ছবি ও ভিডিও দেখতে পারেন।

আপনার সহপাঠী গ্রুপ তৈরি করুন

আপনি আপনার সহপাঠীদের নিয়ে একটি গ্রুপ তৈরি করতে পারেন। গ্রুপে আপনি আপনার ক্লাসের নোটগুলি শেয়ার করতে এবং আপনার প্রয়োজন মতো অন্যদের নোটগুলি পেতে পারেন। আপনার ফেসবুক গ্রুপের সদস্যদের সাথে একটি পরিকল্পনা, ইভেন্ট বা মিটিংও আয়োজন করতে পারেন।

ছাত্র-ছাত্রীদের-ফেইসবুক-ব্যবহার

২. ফেসবুকে শিক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন কনটেন্ট পড়তে পারেন।

ফেসবুকে প্রচুর শিক্ষামূলক কনটেন্ট রয়েছে। বিশ্বব্যাপী শিক্ষকরা সবসময় অনেক শিক্ষা বিষয়ক তথ্য ও উপকরণ শেয়ার করে থাকেন। শিক্ষকদের শেয়ার করা বই, ফ্ল্যাশকার্ডস, নোটস, কোর্স ফিড এবং ভিডিও পড়ে আপনি যা শিখতে পারবেন, তা কখনোই বইয়ে পাবেন না।

৩. শিক্ষার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম

শিক্ষার্থীরা তাদের ক্লাসের বিভিন্ন প্রজক্ট বা পড়াশুনার জন্য ফেসবুককে একটি মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করতে পারে। এটি শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা একটি উপকারী মাধ্যম হিসেবে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়।

আপনি যে কোন নোট, রিভিউ তৈরি করতে এবং অন্যের নোটগুলি পড়তে পারেন। আপনি কিছু সম্পর্কে অন্যের মতামত পেতে একটি পোলও তৈরি করতে পারেন।

আপনার বিষয় সম্পর্কিত বিভিন্ন গ্রুপে যোগদান করুন এবং নিয়মিত আপডেট হওয়া জ্ঞান এবং তথ্য পাবেন যা আপনাকে আপনার গবেষণায় সহায়তা করবে।

ফেইসবুকে বিনামুল্যে আপনি অনেক কিছুই শিখতে পারেন। ফেসবুকে, প্রচুর শিক্ষামূলক কনটেন্ট রয়েছে। এগুলি প্রতিদিনই বাড়ছে। আপনি যে কোনও কোর্স এবং পাঠ সম্পর্কে সার্চ করেই এসব পাবেন। আপনি অনেক শিক্ষক পাবেন, যারা ইতিমধ্যে সে সম্পর্কে অনেক তথ্য বা কোর্স শেয়ার করেছেন।

৪) শিক্ষাবিদদের কাছ থেকে শিখুন

ফেসবুকে অনেক দুর্দান্ত এবং অভিজ্ঞ শিক্ষক রয়েছেন। তারা শিক্ষার্থীদের জন্য জ্ঞান, ধারণা, টিপস এবং সহায়তা শেয়ার করে থাকেন। আপনি এগুলি অনুসরণ করতে পারেন এবং বিনা মূল্যে অনেক কিছুই শিখতে পারেন। আমি মনে করি এটি অফলাইনে কখনও সম্ভব হতো না।

আপনি যদি কোনও শিক্ষক বা প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কিছু শিখতে চান তবে তা সময়সাপেক্ষ এবং ব্যয়বহুল। এটিই ডিজিটালাইজেসনের বড় সুবিধা, যে আপনি অনলাইনে বিনামূল্যে ঘরে বসেই অভিজ্ঞ শিক্ষকদের থেকে শিখতে পারেন।

৫. চাকরি পেতে সুবিধা

পড়াশুনা শেষে পর্যন্ত আপনার কাজ বা ব্যবসা দরকার, তাই না? সমস্ত বহুজাতিক এবং দেশীয় সংস্থা কর্মীদের নিয়োগের জন্য ফেসবুকে সক্রিয়। বিশ্বায়নের যুগে কোনও সংস্থা ফেসবুকের বাইরে নেই।

আপনার পছন্দের কাজটি সার্চ করুন

চাকরীদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো, পেশাদার এবং কর্মচারীদের নিয়োগের জন্য ফেসবুকে চাকরী পোস্ট করে। আপনি সহজেই আপনার পছন্দসই কাজগুলি খুঁজে পেতে এবং আবেদন করতে পারেন। আপনার অভিজ্ঞতার সাথে সম্পর্কিত হাজার হাজার কাজ সন্ধান করতে পারেন এখানে। এইভাবে আপনি আপনার স্বপ্নের কাজটি খুব দ্রুত খুঁজে পেতে পারেন।

তাছাড়া, আপনি বর্তমানের চাকরীর বাজারে মূল্যবান এবং গুরুত্বপূর্ণ যে দক্ষতাসমূহ থাকা দরকার তা সম্পর্কে জানতে পারেন এবং নিজেকে প্রস্তুত করতে পারবেন।

ফেসবুক প্রোফাইলটি জীবনবৃত্তান্ত হিসাবে ব্যবহার করুন

আজকাল, নিয়োগকর্তারা প্রায়ই সেরা প্রার্থী নির্বাচনের জন্য চাকরি প্রার্থীদের ফেসবুক প্রোফাইল দেখেন। সুতরাং, একটি ভাল ও পেশাদার প্রোফাইল অবশ্যই চাকরি পাওয়ার জন্য আপনার সুযোগ বাড়িয়ে দেয়।

একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করুন

ফেসবুক আপনাকে একটি নেটওয়ার্ক তৈরি করতে সহায়তা করে। আপনি ফেসবুকে অন্য পেশাদারদের সাথে সংযোগ করতে পারেন। এই সংযোগ এবং যোগাযোগ আপনাকে চাকরী, ব্যবসা, দক্ষতা, ধারণা, জ্ঞান এবং পরামর্শ সম্পর্কে তথ্য সন্ধান করতে সহায়তা করে। এটি আপনার অনলাইন উপস্থিতিও শক্তিশালী করে তুলবে।

সবশেষে, আমি শিক্ষার্থীদের ফেসবুক ব্যবহার শুরু করার পরামর্শ দিতে চাই। যদিও ফেসবুক ব্যবহারের কিছু খারাপ ও নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে। তবে, আপনার মনে রাখতে হবে, আমরা যদি মিথ্যা এবং খারাপ জিনিসগুলির ভয়ে আমাদের দরজাটি বন্ধ করি, সত্য এবং ভাল জিনিসগুলি কীভাবে আমাদের ঘরে প্রবেশ করবে।

সুতরাং, আমাদের অবশ্যই ফেইসবুকের সুবিধাগুলি গ্রহণ করতে হবে এবং আমাদের মঙ্গলের জন্য ব্যবহার করতে হবে। ধন্যবাদ, প্রিয় শিক্ষার্থীরা ভিজিট করতে থাকুন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে