সার্বজনীন ভোটাধিকার বলতে কী বোঝায় // নারীর ভোটাধীকার প্রয়োগ

ভোটাধিকার

গণতন্ত্রের সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান ধরা হয় ভোটাধিকার। যেসকল গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থার রাষ্ট্র আছে, প্রত্যেকটিতে প্রাপ্তবয়স্ক ‍নাগরিকের ভোটাধিকার আছে। নাগরিকের এ অধিকার কে মৌলিক অধিকার হিসেবে ধরা হয়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন বলেন “The ballot is stronger than bullet”. (বুলেটের চেয়ে ব্যালট শক্তিশালি)।

নারীর ভোটাধিকার

প্রথিবীর ইতিহাসে প্রথম ভোটাধিকার লাভ করে নিউজিল্যান্ডের নারীরা। নিউজিল্যান্ডের নানীরা ভোটাধিকার পাওয়ার পর থেকে আস্তে আস্তে আন্যান্য দেশের যেমন অস্ট্রেলিয়া, নরওয়ে, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, লেবানন, মালয়েশিয়া, বাহরাইন, সৌদি আরব সহ পর্যায়ক্রমে আরো অনেক দেশের নারীরা ভোটাধিকার লাভ করেন।

ভোটাধিকার

ই-ভোটিং

বিজ্ঞানের কল্যানে ভোট আজ ব্যালট ছাড়িয়ে ডিজিটাল পদ্ধতির ‍দিকে এগোচ্ছে। এখন ই-ভোটিংয়ের মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করা সম্ভব। ই-ভোটিং এর পূর্ণরুপ হচ্ছে  Electronic Voting । এটি হচ্ছে ইলেকট্রনিক ব্যবস্থা ব্যবহার করে ভোট গ্রহণ এবং গণনার পদ্ধতি। ই-ভোটিংয়ের বাস্তব রুপ হচ্ছে ইভিএম এর ব্যবহার। ইভিএম(EVM) এর পূর্ণরুপ হচ্ছে Electronic Voting Machine. এছাড়াও ইন্টারনেট ব্যবহার করে বা মোবাইলের মাধ্যমে ইভোটিং প্রয়োগ করা সম্ভব। সর্বপ্রথম অস্ট্রেলিয়ায় ইভোটিং ব্যবস্খা চালু হয়।

গণভোট 

রাষ্ট্রের কিছু সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে জনগনের মত নেয়া হয় ভোটের মাধ্যমে। আর এ ভোটের মাধ্যমে জনগনের মতামত গ্রহনের প্রকৃয়াকে গণভোট বলে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *