ঈদের নামাজের নিয়ম নিয়ত ও সুন্নত সমূহ

ঈদের নামাজের নিয়ম ও নিয়ত মনে নেই? ঈদের নামাজ পড়ান নিয়ম-নিয়ত ও সুন্নতসমূহ।

ঈদের নামাজের নিয়ম

পবিত্র ঈদুল আযহা খুবই নিকটে। খুব সম্ভবত ১১ জুলাই ২০২২ এবং বৃহস্পতিবার ঈদুল আযহা হওয়ার কথা। যাই হোক, ঈদ উল আযহার নামাজের নিয়ম আমাদের অনেকের ই মনে থাকেনা। যাদের মনে থাকেনা, তাদের জন্য আজকে ঈদুল আযহার নামাজের নিয়ত ও নিয়ম বিস্তারিত জানিয়ে দিব ইনশাআল্লাহ।

ঈদুল ফিতর ও আযহার নামাজ ওয়াজিব। এর পদ্ধতি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের মতো নয় এবং কাজা করারও সুযোগ নেই। ঈদের দুই রাকাত নামাজের জন্য আজান দেওয়া হয় না। এতে অতিরিক্ত ছয়টি তাকবির রয়েছে।

আসুন ঈদ উল আযহার নামাজ পড়ার নিয়ম বিস্তারিত জানি।

ঈদুল আযহা ২০২২ কত তারিখে হবে

ঈদুল আযহা ২০২২ অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাব্য তারিখ হচ্ছে 11 জুলাই। আরবী জিলহজ্ব মাসের ১০ তারিখ ঈদুল আযহা বা কোরবানি ঈদ উদযাপন করা হয়।

যেহেতু ঈদ ও অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠান চাঁদ দেখার উপর নির্ভরশীল তাই নির্দিষ্ট তারিখের একদিন আগে বা পরে ঈদ অনুষ্ঠিত হতে পারে।

ঈদুল আযহার নামাজের শর্ত

ঈদের নামাজ খোলা স্থানে, মসজিদ বা বাসা বাড়িতে যেখানেই পড়া হোক না কেন তা অবশ্যই জামায়াতের সাথে পড়তে হবে। জুমআর নামাজ পড়ার যেসব শর্ত রয়েছে তা ২ ঈদের নামাজের ক্ষেত্রেও একই। ঈদের নামাজের শর্তগুলো হলো,

  1. ওয়াকফকৃত জায়গায়
  2. কমপক্ষে ৩ জনের জামায়াত
  3. খুতবা পাঠ ও শ্রবণ
  4. সূর্য উদিত হওয়ার পর দ্বিপ্রহরের আগে পড়া

ঈদের সালাত বাসায় একা পড়ার কোন বিধান নেই। তাছাড়া এটি বাসায় পড়ার কোন বিষয় নয়। একান্ত অপারগতা ছাড়া বাসায় ঈদের জামায়াত শুদ্ধ হবে না।

ঈদুল আযহার নামাজের নিয়ত

পবিত্র ঈদ উল আযহার নামাজের নিয়ত আরবীতে

 نَوَيْتُ أنْ أصَلِّي للهِ تَعَالىَ رَكْعَتَيْنِ صَلَاةِ الْعِيْدِ الْفِطْرِ مَعَ سِتِّ التَكْبِيْرَاتِ وَاجِبُ اللهِ تَعَالَى اِقْتَضَيْتُ بِهَذَا الْاِمَامِ مُتَوَجِّهًا اِلَى جِهَةِ الْكَعْبَةِ الشَّرِيْفَةِ اللهُ اَكْبَرْ

(উচ্চারণ: ‘নাওয়াইতু আন উসাল্লিয়া লিল্লাহি তাআলা রাকাআতাইন সালাতিল ইদিল ফিতরি মাআ সিত্তাতিত তাকবিরাতি ওয়াঝিবুল্লাহি তাআলা ইকতাদাইতু বিহাজাল ইমামি মুতাওয়াঝঝিহান ইলা ঝিহাতিল কাবাতিশ শারিফাতি ‘আল্লাহু আকবার’)

পবিত্র ঈদ উল আযহার নামাজের নিয়ত বাংলায়

আমি ইমামের পেছনে কেবলামুখী হয়ে ঈদুল আযহার দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ ছয় তাকবিরের সঙ্গে আদায় করছি।

ঈদ উল আযহার নামাজ পড়ার নিয়ম

ঈদের নামাজের ক্ষেত্রে কোন আজান ও ইকামত দিতে হয় না। উভয় ঈদের আগে পরে কোনো নফল বা সুন্নত নামাজ নেই। এতে অতিরিক্ত ছয়টি তাকবির রয়েছে। ঈদ উল আযহার নামাজের নিয়ম হচ্ছে,

  1. তাকবীরে তাহরিমা– ঈদ উল আযহার নামাজের নিয়ত করে ইমাম উচ্চস্বরে “আল্লাহু আকবার” বলার পর মুসল্লীরাও “আল্লাহু আকবার” বলে হাত বাঁধবেন।
  2. সানা পড়ুন– এরপর সানা পড়ুন।
  3. প্রথম রাকাতে ৩টি তাকবীর– সানা পড়া শেষে আবার ইমামের সাথে “আল্লাহু আকবার” বলে তাকবী ৩ টি তাকবীর দিন। প্রথম ২ তাকবীরে কান পর্যন্ত হাত উঠিতে ছেড়ে দিবেন ৩য় তাকবীরের সময় হাত বেঁধে নেবেন।
  4. রুকু ও সিজদাহ করুন– ইমাম সুরা ফাতিহা ও একটি সূরা পড়া শেষে প্রথম রাকাতের রুকু ও সিজদাহ করবেন। ইমামের সাথে এভাবে প্রথম রাকাত শেষ করুন।
  5. ২য় রাকাতে ৩টি তাকবীর– ২য় রাকাতে সুরা ফাতিহা ও একটি সূরা পড়া শেষ রুকুতে যাওয়ার আগে অতিরিক্ত ৩টি তাকবীর বলতে হবে। প্রতি তাকবীরে কান পর্যন্ত হাত উঠিয়ে ছেড়ে দিতে হবে। ৪র্থ তাকবীরে সোজা রুকুতে যাবেন ও সিজদাহ করে শেষ বৈঠকে বসে যাবেন।
  6. সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করবেন।

ঈদ উল আযহার তাকবীর

তাকবির হচ্ছে আল্লাহর কৃতজ্ঞতাজ্ঞাপন করা। আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করে তাকবির পড়া। এটিই ঈদের প্রথম কাজ। আল্লাহ তাআলা কোরআনুল কারিমেও তাকবির পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন এভাবে-

وَلِتُكْمِلُواْ الْعِدَّةَ وَلِتُكَبِّرُواْ اللّهَ عَلَى مَا هَدَاكُمْ وَلَعَلَّكُمْ تَشْكُرُونَ

‘আর তোমাদের আল্লাহ তাআলার মহত্ত্ব বর্ণনা কর, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা স্বীকার কর।’( সুরা বাকারা : আয়াত ১৮৫)

তাকবির হলো

اَللهُ اَكْبَر اَللهُ اَكْبَر لَا اِلَهَ اِلَّا اللهُ وَاللهُ اَكْبَر اَللهُ اَكْبَروَلِلهِ الْحَمْد

উচ্চারণ : ‘আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবর ওয়া লিল্লাহিল হামদ।’

আল্লাহ তাআলা রোজাদার মুমিন মুসলমানকে ঈদের নামাজ পড়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

ঈদুল আযহার সুন্নত সমূহ

ঈদুল আযহার কিছু বিশেষ সুন্নত রয়েছে। সুন্নতগুলো হলো,

  1. খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠা
  2. মহল্লার মসজিদে গিয়ে জামমায়াতে ফজরের নামাজ আদায় করা
  3. মিসওয়াক করা ও গোসল করা
  4. সামর্থ্য অনুযায়ী নতুন পোশাক পরিধান করা
  5. আতর ব্যবহার করা
  6. ঈদুল আযহার দিন কিছু না খেয়ে ঈদগাহে যাওয়া
  7. ঈদগাহে হেঁটে যাওয়া
  8. ঈদুল আজহার দিন পবিত্র কুরবানীর গোশত দিয়ে খাওয়া শুরু করা
  9. ঈদগাহে এক রাস্তা দিয়ে যাওয়া এবং অন্য রাস্তা দিয়ে ফিরে আসা
  10. তারাতারি ঈদগাহে যাওয়া

তাকবীর পড়তে পড়তে ঈদগাহে যাওয়া। তাকবীর- اَللهُ اَكْبَر اَللهُ اَكْبَر لَا اِلَهَ اِلَّا اللهُ وَاللهُ اَكْبَر اَللهُ اَكْبَروَلِلهِ الْحَمْد (আল্লাহু আকবর, আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবর ওয়া লিল্লাহিল হামদ।)

আশা করি উপরের তথ্য গুলো আপনার কাজে লাগবে। এধরণের আরো বিভিন্ন শিক্ষামূলক তথ্য পেতে ফলো করুন বিডিক্লাসের ফেইসবুক পেইজ- BDclass.

Rate this post